শায়েস্তাগঞ্জকে ‘উপজেলা’ ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিনিধি : হবিগঞ্জে শায়েস্তাগঞ্জবাসীর দীর্ঘদিনের দাবী ‘শায়েস্তাগঞ্জকে উপজেলা’ ঘোষণা করা হয়েছে। এ ঘোষণার মধ্যে দিয়ে দেশের ৪৯২তম উপজেলা শায়েস্তাগঞ্জ এবং হবিগঞ্জ জেলায় ৯টি উপজেলায় উন্নীত হল।

সোমবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে সরকারের প্রশাসনিক পুর্নবিন্যাস-সংক্রান্ত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি (নিকার) বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘শায়েস্তাগঞ্জকে উপজেলা’ ঘোষণা করেন।

নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সদ্য অবসরপ্রাপ্ত সচিব শায়েস্তাগঞ্জের কৃতি সন্তান অশোক মাধব রায় বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

সূত্র জানায়, হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ৮নং ইউনিয়ন শায়েস্তাগঞ্জ। এ ইউনিয়নের প্রাণকেন্দ্র শায়েস্তাগঞ্জ রেলস্টেশন, ড্রাইভার বাজার, দাউদনগর বাজার, পুরান বাজারকে কেন্দ্র করে ১৯৯৮ সালে তৎকালিন আওয়ামীলীগ সরকার শায়েস্তাগঞ্জকে পৌরসভা ঘোষণা করে।

পরে ২০০১ শায়েস্তাগঞ্জকে থানায় রূপান্তর করে।

এর আগে ২০১৪ সালের ২৯ নভেম্বর হবিগঞ্জ নিউফিল্ড মাঠে আওয়ামীলীগের এক জনসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা করেছিলেন শায়েস্তাগঞ্জকে উপজেলা করা হবে।

এর আগে ১৯৯৭ সালে শায়েস্তাগঞ্জে খোয়াই নদীর উপর ব্রীজ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বক্তব্যের এক পর্যায়ে শায়েস্তাগঞ্জকে উপজেলায় রূপান্তরের ঘোষণা দিয়েছিলেন। এরই ধারাবাহিকায় আজকে ‘শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা’।

বিশ্বসূত্র জানায়, শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার আওতাধীন শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভা, ৮ নং শায়েস্তাগঞ্জ ইউনিয়ন, ৭নং নুরপুর ও ১১নং ব্রাহ্মডোরা ইউনিয়ন। জনসংখ্যা প্রায় লক্ষাধিক।

এদিকে শায়েস্তাগঞ্জকে উপজেলায় রূপান্তরের ঘোষণা দেয়ায় এলাকাবাসীর মধ্যে উৎসবের আমেজ সৃষ্টি হয়েছে। শায়েস্তাগঞ্জবাসী আনন্দ মিছিলের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

হবিগঞ্জ-৩ সংসদীয় আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এডভোকেট মোঃ আবু জাহির বলেন, ২০০৮ সালে আমি যখন প্রথম এমপি পদে নির্বাচন করি আমার নির্বাচনী ইস্তেহার ছিল ‘শায়েস্তাগঞ্জকে উপজেলায়’ রূপান্তর করা। নির্বাচিত হয়েই উপজেলা করার জন্য কাজ শুরু করি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দিয়ে ২০১৪ সালে হবিগঞ্জ নিউ ফিল্ড মাঠে শায়েস্তাগঞ্জকে উপজেলা ঘোষাণা করিয়েছিলাম। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারণেই আমার নির্বাচনী ইস্তেহার বাস্তবায়ন করতে পেরেছি। শায়েস্তাগঞ্জবাসীর পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীকে কৃতজ্ঞতা ও অভিনন্দন জানাই।

নৌ-পরিবহণ মন্ত্রণায়লয়ের সদ্যঅবসরপ্রাপ্ত সচিব অশোক মাধব রায় বলেন, এ ঘোষণা শায়েস্তাগঞ্জবাসীর জন্য বিশাল অর্জন। এজন্য সরকারকে শায়েস্তাগঞ্জবাসী সরকারের কাছে কৃতজ্ঞ।

শায়েস্তাগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মেয়র মোঃ ছালেক মিয়া বলেন, শায়েস্তাগঞ্জবাসীর দীর্ঘদিনের দাবী আওয়ামীলীগ সরকার পূরণ করেছে। এ ঘোষাণায় শায়েস্তাগঞ্জবাসী আনন্দে উৎফুল্ল, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আমার নেতা এমপি আবু জাহিরকে জানাই কৃতজ্ঞতা। এছাড়াও দীর্ঘদিন যাবত যারা উপজেলার রূপান্তরের জন্য আন্দোলন সংগ্রাম করেছেন তাদেরকেও জানাই আন্তরিক কৃতজ্ঞতা।

সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের সদস্য আব্দুর রশিদ তালুকদার ইকবাল বলেন, আমার সরকার এবং প্রিয় নেতা এমপি আবু জাহির সাহেবের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফসল আজকের ‘শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা’।

পৌর বিএনপির সভাপতি সাবেক মেয়র ফরিদ আহমেদ অলি বলেন, ‘শায়েস্তাগঞ্জকে উপজেলা’ করার জন্য আন্দোলন সংগ্রামে পৌর বিএনপিরও ভূমিকা ছিল। এ ঘোষণায় আমি আমার দল আনন্দিত।

শায়েস্তাগঞ্জ পৌর জাতীয় পার্টির সভাপতি আলহাজ্ব এম এ কাইয়ূম বলেন, আমার নেতা হুসাইন মোঃ এরশাদ সারাদেশে উপজেলা ব্যবস্থা চালু করেছিলেন। আমাদের পার্টি তখন থেকেই শায়েস্তাগঞ্জকে উপজেলা করার দাবী জানিয়ে আসছে। আজ উপজেলা ঘোষণা হওয়ায় জাপা পরিবার আনন্দিত।

শায়েস্তাগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি মোঃ আব্দুর রকিব বলেন, শায়েস্তাগঞ্জকে উপজেলায় রূপান্তর করার জন্য আন্দোলনের সাথে প্রেসক্লাব অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িত ছিল। আমাদের সংসদ সদস্য মোঃ আবু জাহির ও শায়েস্তাগঞ্জের কৃতি সন্তান নৌ-পরিবহণ মন্ত্রণালয়ের সদ্যঅবসরপ্রাপ্ত সচিব অশোক মাধব রায়ের কারণেই ‘শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা’। এছাড়াও শায়েস্তাগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ফিরুজুল ইসলাম চৌধুরী স্বাধীকার পত্রিকায় ‘শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা’ করা শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করেছিলেন। সর্বোপুরি শায়েস্তাগঞ্জের সকল সাংবাদিকরা এ ঘোষণায় খুশি।

     এই ক্যাটাগরীর আরো খবর

ge-418" />