এমপি কেয়া চৌধুরীর উপর হামলাকারীদের গ্রেফতারের দাবিতে অবরোধ

বাহুবল প্রতিনিধি: বাহুবলে এমপি কেয়া চৌধুরীসহ নারী ইউপি মেম্বারদের উপর হামলাকারীদের গ্রেফতার দাবিতে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

রোববার দুপুর পৌনে ১২টায় উপজেলা সদরস্থ ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের মৌচাক পয়েন্টে এ কর্মসূচি পালিত হয়।

কর্মসূচি শুরু হলে মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে রাস্তার উভয় পার্শ্বে সহস্রাধিক যানবাহন আটকা পড়ে। আটকা পড়া যাত্রীদের মাঝে দুর্ভোগ শুরু হয়।

দুপুর পৌনে ১টার দিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ জসীম উদ্দিন, নির্বাহী ম্যাজিস্টেট মোঃ সেলিম ও বাহুবল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মাসুক আলী ঘটনাস্থলে হাজির হয়ে হামলাকারীদের গ্রেফতারের জন্য এক সপ্তাহ সময় চেয়ে অবরোধ প্রত্যাহারের অনুরোধ করেন।

পরে প্রশাসনের অনুরোধে অবরোধ প্রত্যাহার করা হলে বেলা ১টার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। অবরোধ প্রত্যাহারের পরপর সমবেত আন্দোলনকারী নারী-পুরুষদের সমন্বয়ে একটি বিশাল বিক্ষোভ মিছিল উপজেলা সদরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

এদিকে, স্থানীয় সন্ত্রাস-দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির উদ্যোগে অনুষ্ঠিত অবরোধ কর্মসূচির পূর্বে একই পয়েন্টে অবস্থান ধর্মঘট ও সমাবেশ শুরু হয়।

কমিটির সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আওয়ামীলীগ নেতা ডা. আবুল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সন্ত্রাস-দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুল মুছাব্বির শাহিন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আসকার আলী, যুগ্ম সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান চৌধুরী টেনু, সাংগঠনিক সম্পাদক বশির আহমেদ, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ফরিদ মিয়া তালুকদার, মিনহাজ উদ্দিন চৌধুরী, জিতু মিয়া, ডা. হারুনুর রশিদ, আয়াজ আলী, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক অলিউর রহমান, যুগ্ম আহ্বায়ক মুশাহিদ আলী, উপজেলা কৃষকলীগের সহ-সভাপতি নূরুল ইসলাম নূর, সাধারণ সম্পাদক শেখ সুহেল আহমেদ, উপজলো ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ফারুকুর রশিদ, জেলা ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক আলাউদ্দিন, জেলা সাংস্কৃতিলীগের সভাপতি মামুনুর রশিদ, ইউপি মেম্বার পারভীন আক্তার, সাবেক মেম্বার নাজমুন নাহার রিতা, রাহিলা আক্তার, আওয়ামীলীগ নেতা রঙ্গু মিয়া, যুবলীগ নেতা ছুরুক মিয়া, আবুল ফজল, হারুনুর রশিদ, আব্দুল হাই, সুজাত, আয়াত আলী, তোফায়েল, ইমরুল, কৃষকলীগের লুৎফুর রহমান ও এসএম শাবাজ প্রমুখ।

গত ১০ নভেম্বর উপজেলার মিরপুর বাজারের অদূরে বেদে পল্লীতে সরকারি সহায়তার চেক বিতরণকালে উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে হবিগঞ্জ-সিলেটের দায়িত্বপ্রাপ্ত নারী সংসদ সদস্য আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী এমপি’র উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ হামলায় নারী ইউপি সদস্য পারভীন আক্তার ও সাবেক নারী ইউপি সদস্য রাহিলা আক্তারসহ অন্যান্যরা আহত হন। গত ১৮ নভেম্বর রাতে এ ব্যাপারে একটি মামলা দায়ের করেন উপজেলার লামাতাসী ইউপি’র ১নং (সাধারণ ওয়ার্ড ১, ২ ও ৩) সংরক্ষিত ওয়ার্ডের নারী সদস্য পারভীন আক্তার। মামলায় নবনির্বাচিত বাহুবল উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ তারা মিয়া ও হবিগঞ্জ জেলা পরিষদ সদস্য আলাউর রহমান সাহেদসহ ৩ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরো ১৪/১৫ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে।

ঘটনার পর থেকে বাহুবল, নবীগঞ্জ, হবিগঞ্জ, শ্রীমঙ্গল, সিলেটসহ দেশ-বিদেশে ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার দাবিতে সভা, সমাবেশ, মিছিল ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। গত ১৬ নভেম্বর সন্ত্রাস-দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির উদ্যোগে বাহুবল উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের সামনে ৫ ঘন্টার অবস্থান ধর্মঘট পালন করা হয়। ধর্মঘট শেষে ২৬ নভেম্বর বাহুবল উপজেলা সদরস্থ মৌচাক পয়েন্টে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে শান্তিপূর্ণ অবস্থান ধর্মঘটন ও মহাসড়ক অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। এ ঘটনায় ১৬ দিন অতিবাহিত হলেও ঘটনার সাথে জড়িত কেউ গ্রেফতার হয়নি।

     এই ক্যাটাগরীর আরো খবর

ge-418" />